করোনা ভাইরাসের গুজব সাতক্ষীরায়

গুজবের কারণে এক মায়ের মৃত্যু

0
984

ছেলের দেহে করোনা ভাইরাস আছে। পুলিশ তাকে খুঁজেছে। পেলে গুলি করে মেরে ফেলবে। এমন খবর শুনে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা গেলেন মা।

সাতক্ষীরার পদ্মপুকুর ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে। জানা গেছে, কয়েকদিন আগে পাতাখালি গ্রামের বিমল রপ্তানের ছেলে রতন রপ্তান কয়েকদিন আগে ভারত থেকে ফেরে। ফেরার সময় ভোমরা ইমিগ্রেশন চেকপোস্টে করোনা ভাইরাস পরীক্ষা করার সময় রতনের জ্বর, সর্দি ও কাশি ধরা পরে।

চেকপোস্টের দায়িত্বপ্রাপ্তরা ৩৫ বছর বয়েসী রতনকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন। সেখানেও রক্ত পরীক্ষায় তার শরীরে সর্দি, কাশি ও জ্বর ধরা পড়ে। তবে তার করোনা ভাইরাসের আলামত পাওয়া যায়নি। তবু তাকে হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পরামর্শ দেয়া হয়। কিন্তু সে হাসপাতাল ভর্তি না হয়ে পালিয়ে যায়।

হাসপাতাল থেকে দিনমজুর রতনের পালিয়ে যাওয়ার কথা এলাকায় জানাজানি হয়। এরপর পুলিশ ও স্বাস্থ্য বিভাগের লোকেরা তার খোঁজ নেয়।

এরই মধ্যে কে বা কারা গুজব রটিয়ে দেয় রতনকে পুলিশ খুঁজছে। খুঁজে পেলে তাকে গুলি করে মারা হবে যেন করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে না পড়ে।

এ কথা রতনের ৫৬ বছর বয়েসী মা রেনুকা বালা শুনতে পান। গুজবটি শুনে সোমবার রাতে রেনুকা বালা হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান।

তবে এ গুজব ও গুজবের কারণে রেনুকা বালার মৃত্যুর বিষয়ে শ্যামনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা এবং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জানেন না বলে জানিয়েছেন।

পদ্মপুকুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান জানান, গুজবের কথা শুনেছি। তবে রেনুকা বালার মৃত্যুর পর কেউ স্বীকার করেছেন না এই গুজব কে বা কারা ছড়িয়েছিল।