ভক্তদের সচেতন করছেন সানি লিওন

0
1504
লকডাউনের সময় কিভাবে ভাল থাকতে হবে সে প্রসঙ্গে শুক্রবার দুপুরে সানি লিওন পরামর্শ দেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছবি আপলোড দেয়ার। লাইভ শেষ করেই তিনি এই ছবিটি ফেসবুকে নিজের পেইজে আপলোড দেন।

করোনা ভাইরাস নিয়ে নিজের ভেরিফাইড পেইজে ভক্তদের সচেতন করলেন সানি লিওন। নিজের মতামত জানানোর পাশাপাশি ভক্তদের নানা প্রশ্নের উত্তরও দেন তিনি।

শুক্রবার ফেসবুক লাইভে এসে ভক্তদের সাথে করোনা ভাইরাস নিয়ে কথা বলছেন সানি লিওন

শুক্রবার দুপুরে টানা এক ঘন্টা তিনি লাইভে এসে কথা বললেন। সবাইকে ঘরে থাকার আহ্বান জানানোর পাশাপাশি দিলেন মজার কিছু টিপস। লকডাউন অবস্থায় কি করে সময় কাটানো যায় সে নিয়েও ভক্তদের প্রশ্নের উত্তর দেন পোস্টার গার্ল সানি।

লাইভে যুক্ত হয়ে সানির এক নারী ভক্ত, যিনি পেশায় চিকিৎসক তিনিও করোনা আক্রান্ত ও করোনার উপসর্গ নিয়ে যারা চিকিৎসাধীন আছেন তাদের নানা পরামর্শ দেন।

ভক্তদের আবদারে সানি নিজের জীবনের গল্প করলেন। আবার তাদের আব্দারে স্ক্রিণে ডেকে আনলেন স্বামী ড্যানিয়েলকে। সারা শরীরে ট্যাট্টু আঁকা ড্যানিয়েল অবশ্য কয়েক সেকেন্ড উপস্থিত থেকেই সরে পড়েন, ভক্তদের সাথে সানিকে সময় শেয়ার করার জন্য।

দুই ছেলে আর এক মেয়ে নিয়ে দারুণ সময় পাড় করছেন সানি। সন্তানদের সাথে তার খানিকটা খুনসুটি চলে লাইভে থাকার সময়ও। শেষ পর্যন্ত হার মেনে নেন সানি। ছেলের কথা মত স্পাইডারম্যান সেজে থাকতে হয় লাইভে।

ছেলের আবদার বলে কথা। লাইভের মাঝেই সাজলেন স্পাইডারম্যান

শুধু করোনা ভাইরাস নয়, নারী অধিকার, অভিনয়সহ নানা প্রসঙ্গেও কথা হয় এ সময়। প্রায় সাড়ে ৮ হাজার ভক্ত সানির সাথে যুক্ত থাকেন তার লাইভ চলা অবস্থায়। এ সময় কমেন্ট হয় ৪৯ হাজার।

লাইভ থেকে বিদায় নেয়ার আগে সানি ভক্তদের জন্য কয়েক মিনিট নাচলেনও।

ভক্তদের আবদারে লাইভে এলেন ড্যানিয়েল। শেষ দিকে নাচলেনও সানি লিওন

উল্লেখ্য, করেনা ভাইরাস চীনের বাইরে ছড়িয়ে পড়ার সময় থেকে সানি ও তার পরিবার সতর্ক রয়েছেন। শুরু থেকেই পরিবারের সবাই মাস্ক ব্যবহার করা এবং অন্যদের সাথে দৈহিক দূরত্ব বজায় রাখছেন।

ফেব্রুয়ারি মাসেই সানি শুরু করেছেন মাস্ক ব্যবহার করা। তাতে লেখা ছিল ‘সুরক্ষিত থাকাটা বেশ জরুরী। আশপাশের পরিবেশে কি হচ্ছে সে বিষয়টি মাথায় রাখতে হবে।’

শ্যুটিং ইউনিটের কর্মী আর ভক্তদের সাথে বেশ ভাল ব্যবহার করেন সানি লিওন। মেশেনও আন্তরিকতার সাথে। সেলফি তুলতে ভক্তদের নিষেধ করেননি কখনও। বরং ছবিটা আরও ভাল কি করে হতে পারে সেই পরামর্শ দিয়েছেন। নিজেও সেলফি তুলে দিয়েছেন ভক্ত অনুরাগীদের। কিন্তু পরিস্থিতি পুরোটাই বদলে গেছে। ফেব্রুয়ারিতেই সাফ জানিয়ে দিয়েছেন আপাতত ভক্তদের সাথে কোন সেলফি নয়। এমনকি অপরিচিতদের সাথে কথা বলাও বন্ধ।

সেই ফেব্রুয়ারিতেই সানি লিওন আর ড্যানিয়েল এয়ারপোর্ট যাচ্ছিলেন। মুখে যথারীতি মাস্ক পরা। কয়েকজন ভক্ত তাকে দেখিয়ে এগিয়ে এসেছিলেন। চাইলেন সেলফি তুলতে। এতে আপত্তি ছিল না সানির। কিন্তু গোল বাঁধলো যখন তাকে অনুরোধ করা হলো মাস্ক খুলতে। এই অনুরোধ উপেক্ষা করে সানি ছবি না তুলেই স্বামীর হাত ধরে চলে গেলেন।