হাত ধোয়ার নিয়ম

0
704

করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে সারা বিশ্বে। এখন পর্যন্ত ১৯০ দেশ ও অঞ্চলে সংক্রমণ ঘটেছে ভাইরাসটির। মারা গেছেন ১৬ হাজার ৫৯৫ জন মানুষ। আক্রান্তের সংখ্যা ৩ লাখ ৮৩ হাজার ৯৪৪ জন। সুস্থ হয়েছেন এক লাখ ১ হাজার ৯১১ জন। বলা হচ্ছে, করোনা সংক্রমণের  অন্যতম প্রতিরোধক হচ্ছে হাত ধোয়া। সংক্রমণ থেকে বাঁচতে এখন কম-বেশি সবাই হাত ধোয়ার চেষ্টা করছেন। কিন্তু আমরা কি নিয়ম মেনে হাত ধুই? হাত ধোয়ার নিয়ম নিয়ে লিখেছেন কুমুদিনি মহিলা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক ডাক্তার বিলকিস বেগম চৌধুরী

ডা. বিলকিস বেগম চৌধুরী। ফাইল ছবি

কিভাবে হাত ধোবেন?

এই সাধারণ ব্যাপারটা আমরা সবাই জানি। প্রাণঘাতী করোনা সংক্রমণের একটি অন্যতম প্রতিরোধক হচ্ছে “হাত ধোয়া”।

হাত ধোয়ার সময় আপনি পানির কলটি খুলে বেসিন থেকে সাবান নিয়ে ২০ থেকে ৩০ সেকেন্ড সময় নিয়ে হাত ধুয়ে আবার কলটি বন্ধ করে চলে গেলেন… ঠিক হলো কি? মোটেই ঠিক নয়।
কারণ আপনি যখন কলটি স্পর্শ করেছেন, ভাইরাস তখন ঐ কলটাকে সংক্রমিত করেছে। সুতরাং হাত ধোয়ার পর কল বন্ধ করার সময় আপনার দেয়া জীবাণু আবারও আপনি বহন করে নিয়ে যাচ্ছেন (যদি কলটা সাবান দিয়ে না ধুয়ে থাকেন)।

তাই হাত ধোয়ার শুরুতে পানির কলে ভালো করে সাবান মেখে রাখুন…. এরপর নিজে ভালো করে কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড সময় নিয়ে হাতে সাবান ঘষুণ… পানির কলটিকে সাবান ঘষে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন… এখন নিজের হাত ভালো করে পরিষ্কার পানিতে ধুয়ে কল বন্ধ করুন। এবার আপনার হাত মোটামুটি শঙ্কামুক্ত।

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ হয় মূলত নাক, চোখ ও মুখের মাধ্যমে। কিন্তু এই ভাইরাস যে কোন surface এ অনেক ক্ষণ বেঁচে থাকতে পারে। সুতরাং করোনা আক্রান্ত রোগীর হাঁচি-কাশির মাধ্যমে এই ভাইরাস সরাসরি অন্য মানুষের শরীরে ঢুকে যায় (droplet infection)। এ জন্যই বলে-
* নুন্যতম তিন থেকে ছয় ফিট দূরত্ব বজায় রাখুন (Social Distancing)।

* প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে বের হবেন না (Stay Home)

* বের হলে মাস্ক ব্যবহার করুন (চীনের আট শর্তের একটি)। কারণ আমরা জানি না কে/ কারা এই ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত।

আবার রোগীর হাঁচি-কাশির সময় ভাইরাসটি আশপাশের জায়গা, যেমন টেবিল, চেয়ার, ফ্লোর ইত্যাদি স্থানে ছড়াতে পারে। এছাড়াও রোগী মাস্ক ছাড়া তার নিজের হাতের তালু মুখের সামনে দিয়ে হাঁচি কাশি দিয়ে /নাক বা চোখ চুলকিয়ে ওই হাতে অন্য কোন কিছু স্পর্শ করলে, এমনকি লিফটের বাটন এ চাপ দিলে সেই সব স্থানেও ভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে পারে।

এখন একজন সুস্থ মানুষ এই সব আক্রান্ত ব্যক্তির সাথে করমর্দন করলে, অথবা সংক্রমিত জিনিস / জায়গায় হাত রেখে এবং হাত না ধুয়ে তার নিজের চোখ-নাক চুলকালে অথবা খাবার খেলে করোনা ভাইরাস দ্বারা তিনিও সংক্রমিত হবেন।

* এজন্যই হাত ধোয়া এত গুরুত্বপূর্ণ।